হাটখালী

হাটখালী

  • চকখড়ি-উপন্যাস-রিভিউ
    উপন্যাস,  বই পর্যালোচনা,  সাগতা,  সাহিত্য,  হাটখালী

    চকখড়ি উপন্যাস রিভিউ

    চকখড়ি উপন্যাস রিভিউ   ‘চকখড়ি’ উপন্যাসটি ১৯৬৪ খ্রিস্টাব্দে আর্ট ইউনিয়ন থেকে প্রকাশিত হয়। উপন্যাসটির পটভূমি আনন্দ বাগচীর (১৯৩২-২০১২ খ্রি.) জন্মভূমি পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার হাটখালী ইউনিয়নের সাগতা গ্রামকে কেন্দ্র করে। সাগতার পাশাপাশি ব্যক্তিজীবন অধ্যয়ন ও কর্মজীবনের জন্য কলকাতার কথা এসে গেছ। পঞ্চাশের দশকের কখনো পরিণত পরিণতি, কখনো সুখ-দুঃখের মিশ্রণ, রাজনৈতিক ভাঙা-গড়া, সব হারিয়েও নতুন কিছু পাওয়ার আস্বাদে শীতল রক্তের মানুষের বেঁচে থাকা। আনন্দ বাগচী শৈশবের সেই কলকাতা দেখেছেন এবং তা লিখেছেন ‘চকখড়ি’ উপন্যাসে। এটি তাঁর প্রথম উপন্যাস। প্রচুর ভালোবাসা আর অন্তরঙ্গ জীবনের কথা লিখেছেন। কলকাতাকে যেমন দেখেছেন তেমনই লিখেছেন। দরজায় দরজায় তালা ঝুলছে। মানুষজন শূন্য কলকাতা। ফাঁকা রাস্তাঘাট।অন্ধকারে ডুবে গিয়ে…

  • আনন্দ-বাগচী
    লেখক পরিচিতি,  সাগতা,  সাহিত্য,  হাটখালী

    আনন্দ বাগচী (শেষ পর্ব)

    আনন্দ বাগচী (শেষ পর্ব)   শেষ পরিণতি: ত্রিলোচন কলমচী বা শ্রীহর্ষ ছদ্মনামে যিনি লিখে গেলেন একের পর এক নিবন্ধ কিংবা ‘কানামাছি’, ‘মুখোসের মুখ’, ‘বনের খাঁচায়’, ‘চকখড়ি’ র মত একাধিক উপন্যাস এবং যিনি ‘কৃত্তিবাস’ পত্রিকার অন্যতম কিংবা দীর্ঘদিন ‘দেশ’-এর মত বিপুল প্রাতিষ্ঠানিক পত্রিকায় যুক্ত ছিলেন সেই আনন্দ বাগচীকেও আমরা মিশে যেতে দেখলাম সমকাল থেকে শূন্যে। অর্থাৎ শাশ্বত বলে সত্যিই কিছু নেই। অনেকের ধারণা ‘বিস্মৃতি’ নামের শব্দটা লিটিল ম্যাগের লেখক কবি কিংবা লোকচক্ষুর আড়ালে থেকে যাওয়া অপ্রাতিষ্ঠানিক সাহিত্যিকদেরই একমাত্র ললাট লিখন কিন্তু আনন্দ বাগচীর মত প্রাতিষ্ঠানিক একজন বহুকলমীর ধীরে ধীরে একটানা জ্বলতে থেকে আকস্মিক ফুরিয়ে যাওয়া যেন বারবার মনে করিয়ে দেয় ক্ষণকালের…

  • আনন্দ-বাগচী-২য়-পর্ব
    লেখক পরিচিতি,  সাগতা,  সাহিত্য,  হাটখালী

    আনন্দ বাগচী (২য় পর্ব)

    আনন্দ বাগচী (২য় পর্ব)   সাহিত্য মূল্যায়ন: বাংলা সাহিত্যে সম্ভবত প্রথম কাব্যোপন্যাস রচিয়তা এবং পঞ্চাশ দশকের উজ্জ্বলতম কবিদের মধ্যে একজন হলেন আনন্দ বাগচী।  কবি সুশীল রায়ের (১৯১৫-১৯৮৫) ভাষায়: ‘স্বগত-সন্ধ্যা’ যখন বের হয় তখন আনন্দ বাগচী অসাধারণ খ্যাতি লাভ করেছিলেন। যে-কোনো সাহিত্য সভায় বা কবি সম্মেলনে যে নাম নিয়ে সর্বপ্রথম এবং সবচেয়ে বেশি আলোচনা হত সে হল আনন্দ বাগচী।’ আর যে কৃত্তিবাস (১৯৫৩) পত্রিকা, যা কিনা সে সময়ে তরুণ কবিদের আত্মপ্রকাশের প্রধান আশ্রয় হয়ে উঠতে পেরেছিল, সেই পত্রিকার সঙ্গেও ছিল আনন্দ বাগচীর যুক্ততা। হয়তো তেমন নিবিড় নয়, কিন্তু সংযোগটা ছিল তো!  সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় জানিয়েছেন, “১৯৫৩ খ্রিস্টাব্দের বর্ষাকালে (শ্রাবণ ১৩৬০) প্রকাশিত হয়…

  • আনন্দ-বাগচী-১ম-পর্ব
    লেখক পরিচিতি,  সাগতা,  সাহিত্য,  হাটখালী

    আনন্দ বাগচী (১ম পর্ব)

    আনন্দ বাগচী (১ম পর্ব)   আনন্দ বাগচী বিস্মৃতিতে তলিয়ে যাওয়া একজন কবির নাম। অথচ নিজের যৌবনের শুরুতে যিনি ছিলেন পঞ্চাশের দশকের উজ্জ্বলতম কবিদের একজন (জন্ম: ১৯৩২- মৃত্যু: ২০১২ খ্রি.)। তিনি ছিলেন একাধারে একজন কবি, ঔপন্যাসিক ও সম্পাদক। তিনি  উপন্যাস, কিশোরদের সাহিত্য, গোয়েন্দা কাহিনী, গল্পগ্রন্থ, রম্যরচনা, প্রবন্ধগ্রন্থ, অনুবাদগ্রন্থ, কাব্যোপন্যাস ও নাটক রচনা করেছেন। জন্ম:  আনন্দ বাগচী ১৯৩২ খ্রিস্টাব্দের ১৫ মে অবিভক্ত ভারতবর্ষের পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার হাটখালী ইউনিয়নের সাগতা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।   পারিবারিক জীবন: আনন্দ বাগচীর পিতা শ্রী চন্দ্র বাগচী এবং মাতা সজলবালা দেবী। পাঁচ ভাই-বোনের তিনি সবার বড়। ১৯৭২ খ্রিস্টাব্দের ১লা ফেব্রুয়ারিতে তিনি মীরা বাগচীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।…

  • আজকাল,  শোলাকুড়া,  হাটখালী

    পল্লী চিকিৎসক আব্দুর রশিদ

    পল্লী চিকিৎসক আব্দুর রশিদ   পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার হাটখালী ইউনিয়নের শোলাকুড়া গ্রামের সর্বোজন শ্রদ্ধেয় পল্লী চিকিৎসক আব্দুর রশিদ গতকাল দিবাগত রাত ১১:২০ মিনিটে ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে তিনি ঢাকা স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।   হাটখালী ইউনিয়নে তিনি একজন সুপরিচিত ও সুন্দর মনের মানুষ হিসেবে পরিচিত ছিলেন। এলাকাবাসী  একজন গুণী ব্যক্তিকে হারাল।   নব্বইয়ের দশক থেকে তিনি গ্রামের মানুষের সেবা করে আসছেন। আশেপাশের গ্রামের মধ্যে তিনি ছিলেন একমাত্র উল্লেখযোগ্য পল্লী চিকিৎসক। অসুস্থতায় গ্রামের মানুষের একমাত্র আশ্রয়স্থল। এলাকার মানুষের কাছে তিনি রশিদ ডাক্তার নামে পরিচিত ছিলেন। রাজনৈতিক জীবনে তিনি দীর্ঘ সময় ধরে হাটখালী ইউনিয়নের…

  • হাটখালী-ইউনিয়ন-পরিষদ
    ইউনিয়নসমূহ,  হাটখালী

    হাটখালী ইউনিয়ন পরিচিতি

    হাটখালী ইউনিয়ন পরিচিতি   হাটখালী ইউনিয়ন পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলা একটি ইউনিয়ন।   অবস্থান: উত্তর পার্শ্বে বিশাল বিস্তৃত গাজনার বিল, দক্ষিণে নাজিরগঞ্জ ইউনিয়ন, পূর্বে সাগরকান্দি ইউনিয়ন এবং পশ্চিমে মানিকহাট ইউনিয়ন ইউনিয়ন অবস্থিত।   নামকরণ:  হাটখালীতে বর্তমানে হাট থাকলেও পূর্বে কোনো হাট ছিল না। এ নতুন গ্রামের বাসিন্দরা পার্শ্ববর্তী রাইপুর, বাদাই, কাদোয়া প্রভৃতি গ্রামের হাট করত। যেহেতু এ গ্রামে কোনো হাট ছিল না সেহেতু তারা পার্শ্ববর্তী গ্রামের লোকদের কাছে ‘হাটখালী’ (হাট নেই) বলে পরিচিতি লাভ করে। তবে খোলাহাট (পাতখোলা) থেকে হাটখালীর নামকরণ হতে পারে বলে অধিকাংশ লোকজন মনে করেন। ‘খোলা’ বলতে কুমোরদের তৈরি হাড়ি-পাতিল বুঝায়। কুমোররা যেখানে খোলা বিক্রি করে তা…

  • মোহাম্মদ-আসাদুল্লাহ
    লেখক পরিচিতি,  সাহিত্য,  সৈয়দপুর,  হাটখালী

    মুহাম্মাদ আসাদুল্লাহ

    মুহাম্মাদ আসাদুল্লাহ ১৯৯১ সালের ৭ই অক্টোবর পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার হাটখালী ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামে এক মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।   পারিবারিক জীবন: বাবার নাম মো. আকমল হোসাইন শিকদার। মা বেগম হাসিনা আকমল। চার ভাই দুই বোনের মধ্যে তিনি চতুর্থ। বড় ভাই হাফেজ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ (হাটখালী ইউনিয়নসহ আশপাশের গ্রামের প্রথম হাফেজ)   শিক্ষা জীবন: মুহাম্মাদ আসাদুল্লাহ সৈয়দপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষা জীবন শুরু, এরপর জামিয়া আশরাফিয়া মাদরাসা, তারপর উলাট সিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদরাসায়। শিবপুর ত্বহা ফাজিল মাদরাসা থেকে ২০০৫ সালে দাখিল পাশ করেন। ২০০৭ সালে আলিম পাশ করেন। ডিপ্লোমা ইন ফার্মেসি পড়েছেন ইনস্টিটিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, মহাখালী-ঢাকা থেকে। স্টেট ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশ থেকে…

  • ড.-মোহাম্মদ-জয়নুল-আবেদীন
    কৃতি ব্যক্তিবর্গ,  গবেষক,  বিজ্ঞানী,  শ্রীপুর (হাটখালী),  হাটখালী

    কৃষি বিজ্ঞানী ড. মোহাম্মদ জয়নুল আবেদীন

    জাতীয় ও আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন কৃষি বিজ্ঞানী ড. মোহাম্মদ জয়নুল আবেদীন দেশ ও দেশের বাইরে কৃষি ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রেখেছেন।  জন্ম: ড. মোহাম্মদ জয়নুল আবেদীন ১৯৪৭ সালের ৩১শে ডিসেম্বর পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার হাটখালী ইউনিয়নের কাশীমনগর শ্রীপুর (শ্রীপুর নামেই বেশী পরিচিত) গ্রামের এক কৃষক  পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।  পারিবারিক জীবন: ড. আবেদীনের বাবার নাম মো. রহিম উদ্দিন শেখ এবং মায়ের নাম মোছা. আকিরন্নেসা। তিনি ৯ ভাই-বোনের মধ্যে দ্বিতীয়তম। বড় এক বোন আছেন। কিন্তু বিয়ে হয়ে যাওয়ায় কার্যত বড় সন্তান এর দায়িত্বই পালন করতে হয়েছে সব সময়।   ড. আবেদীন ১৯৭২ সালে পাবনা শহরের নিলুফার তাসনিমের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের তিন কন্যা…

  • ফকির-শরিফুল-হক
    লেখক পরিচিতি,  সাহিত্য,  হাকিমপুর,  হাটখালী

    ফকির শরিফুল হক

    ফকির শরীফুল হক ১৯৮২ খ্রিস্টাব্দের ১১ই নভেম্বর পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার অন্তর্গত দুলাই ইউনিয়নের চরদুলাই গ্রামে নানার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈত্রিক নিবাস সুজানগর উপজেলার হাটখালী ইউনিয়নের হাকিমপুর গ্রামে। পারিবারিক জীবন: ফকির শরীফুল হক হাকিমপুর ফকির বাড়ীর সন্তান। পিতা মো. হবিবুর রহমান ফকির এবং সালেহা বেগম। বাবা কৃষক আর মা গৃহিণী। চার ভাই বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়।তিনি একই উপজেলার চরদুলাই গ্রামের রিক্তা পারভীনের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। রিক্তা পারভীন সরকারি এডওয়ার্ড কলেজে থেকে অর্থনীতিতে অনার্স- মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। তাদের শাহরিয়ার হক রিদান নামের ৭ বছর বয়সী একটা ছেলে সন্তান রয়েছে। শিক্ষা জীবন: ফকির শরীফুল হকের পড়াশোনার হাতেখড়ি হয়…

error: Content is protected !!