স্বপ্নবাড়ি
আবু জাফর খান,  কবিতা,  সাহিত্য

স্বপ্নবাড়ি

স্বপ্নবাড়ি

আবু জাফর খান

 

শূন্যতার নিজস্ব একটি বিষাদ আছে
ঢেউ ভাঙা একাকী মাঝির নৌকোর পাটাতনে…
সে বিষাদ বেজে যায়;
পাখি ও বিষণ্নতায় মিল পাই
মিল দেখি জল ও মুকুরে
শুধু তুমি আর আমি মেলাতে পারিনি কিছুই।

আমরা জল-পাথরের বিপরীত সুরে বাজি
আমাদের দিনরাত্রির কথার শস্যাঙ্গনে…
না তুমি আছ না আমি;
আমাদের ব্যথার শিষদাগে ডুবে আছে
বিপণি পৃথিবীর সমূহ বিতান।

আমি যখন খুব ভোরে অর্চার্ডে হাঁটি
সেই সময় ঠাকুরমা সুর করে পুথি পাঠ করেন;
আমার মনে হয়, একটা পয়ারের সরণি বেয়ে
পৌঁছে যাচ্ছি দূরে, কৃত্তিবাসের গ্রামে;
আসলে জীবনানন্দের বাড়ির পথ আরও আরও দীর্ঘ।
আমি আঙিনার বাম হাতে দিই পুরনো কিছু সুখ, কিছু পাখির পালক
আর আমার গোটা ভোরের নিজস্ব সকাল;
আমার শূন্যতা আমারই থেকে যায়।

অমিলের পৃথিবীতে কুয়াশা নামে, ধুলো ওড়ে…
এ আমি বুঝে গেছি তোমার অর্কিড-বোঁটা ছোঁয়ার জন্মক্ষণেই;
আমি তাই বিকেল খোঁজার মুদ্রা শিখি।

আমার অসুখী সকাল
কতবার আমাকে বলে, হে যুবক
কী করে লুকবে তুমি বুনোপালকের ওমের রাত?
আমি তখন দেখি, ফেটে গেছে কার্পাস ফুল
চেয়ে আছে দংশিত ঠোঁট, পাপহীন ক্ষতরা সব।

আরও পড়ুন আবু জাফর খানের কবিতা-
প্রেমের প্রয়াণ
নতজানু যুবক
একটি মেঘের দৃশ্য
UTOPIA

Emptiness has its own grief
In the boat of the solitude boatman…
The grief sounds
I see a conformity
between the bird and depression, between water and mirror.
But only you and me have been failed to make any conformity

We play ourselves in an opposite tune of stone and water
in the barn of speeches all day long…
Neither you nor am I.
All tents of the commercial world are plunged in the top stain
of the pain of ours.

At dawn when I walk in the orchard
My grand mother recites the poem with a sweet cadence:
I think I can reach far away following the street of the verse.
the village of Krittibasa;
In fact the path of Jibanananda is longer more than long
I offer some old happiness to the left hand of the courtyard and
feathers a few
And the dawn of my own
The emptiness of mine belongs to me.

The fog descend in the world of contrast, the dust flies….
I could know that at the moment of touching the stem of your orchid,
Therefore I learn the coin of searching the afternoon.

The unhappy dawn of mine
said to me many times
‘O young man
How will you hide
the touch of night of warm feathers?
Then I see the secret flower has already gone off.
The stung lips tremble and the innocent wounds of mine.

আরও পড়ুন কবিতা-
লিপিকার আমিই তোমার
এসেছি স্বাধীনতা সাথে করে
দুর্বিনীত পুত্রগণের প্রতি
অন্য আলো
প্রকৃতিতে হবো লীন

ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলফেসবুক পেইজে

স্বপ্নবাড়ি

Facebook Comments Box

কবি ও কথাশিল্পী আবু জাফর খান নিবিড় অন্তর অনুভবে প্রত্যহ ঘটে চলা নানান ঘটনা, জীবনের গতি প্রকৃতি, বাস্তবতার প্রতিচ্ছবি, ব্যক্তিক দহনের সামষ্টিক যন্ত্রণা তুলে আনেন নান্দনিক উপলব্ধির নিপুণ উপস্থাপনায়। তাঁর লেখায় ধ্বনিত হয় বিবেক কথনের অকৃত্রিম প্রতিভাষা। প্রকাশনা: কাব্যগ্রন্থ-পাথর সিঁড়িতে সূর্যাস্ত বাসনা, অনির্বেয় আকাঙ্ক্ষায় পুড়ি, যে আগুনে মন পোড়ে, যূপকাঠে যুবক, একটি জিজ্ঞাসাচিহ্নের ভেতর, সোনালী ধানফুল, রাতভর শিমুল ফোটে, বীজঠোঁটে রক্তদ্রোণ ফুল, স্যন্দিত বরফের কান্না, প্রত্নপাথর মায়া; গল্পগ্রন্থ-মাধবী নিশীথিনী, পথে পথে রক্ত জবা, উপন্যাস-মেখলায় ম্যাগনোলিয়ার মুখ, জ্যোৎস্নায় ফুল ফোটার শব্দ, কুমারীর অনন্তবাসনা, জ্যোৎস্নাবাসর, মেঘের বসন্তদিন, রূপোলী হাওয়ার রাত, একাত্তরের ভোর, তৃতীয় ছায়া। তিনি ১৯৭৩ খ্রিস্টাব্দের ৩১ জানুয়ারি পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার অন্তর্গত আহম্মদপুর ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। 

error: Content is protected !!