কবিতা,  জিন্নাত আরা রোজী,  সাহিত্য

কেন আমাকে জন্ম দিলে

কেন আমাকে জন্ম দিলে

জিন্নাত আরা রোজী

 

মা বলতে পারো কেন আমাকে জন্ম দিলে?
অপরাধ তো তুমি করেছো,আমাকে জন্ম দিয়ে।
আমি তো কোন অপরাধ করিনি,
তবে কেন আমাকে প্রাণ দিতে হলো?
আমাকে পৃথিবীর আলো কেন দেখালে মা
এই নশ্বর জগতে?
পারলে নাতো জন্তু জানোয়ারের হাত থেকে রক্ষা করতে।
জানো মা; ওরা কোন মায়ের গর্ভে জন্ম নেয়নি,
ওরা কোন বোনের ভাই না,
তাহলে কি আমার সম্ভ্রমহানি করে, গলায় ফাঁস দিয়ে মারতে পারতো?
বহু চেষ্টা করেছিলাম মা ইজ্জ্বত রক্ষা করার কিন্ত পারিনি,
জন্ত জানোয়ারের সাথে কি আমার মত
তের বছরের কিশোরীরা শক্তিতে পারে?

 

জান মা, মুখে কাপড় গুজে,হাত-পা বেঁধে আমার সব নষ্ট করে দিল।
আমি বাঁচতে চেয়েছিলাম, ওরা আমাকে বাঁচতে দিল না।
তোমার কোল খালি হয়ে গেল তাই মা?
ভবিষ্যৎ একজন সন্তান হারালো তার মাকে,
ভালই হলো মরে গিয়ে বেঁচে গেলাম,
আমার মেয়ে সন্তান হলে তার ও এভাবে জীবন দিতে হতো।
মা গো কারো কাছে কোন বিচার চেয়ো না,
তাহলে আমার বোনটার হয়তো এভাবেই মরতে হবে।
মা জান; যখন আমার সম্ভ্রম নষ্ট করলো
তখন আমি ওদের বললাম আমাকে মেরে ফেল,
কারণ বেঁচে থাকলে, এ -সমাজ আমায় ঘৃনা করবে,
সারা জীবন আমিও নিজেকে ক্ষমা করতে পারবো না।
এটা তো নতুন কিছু নয় মা,
আমার মত কত নুসরাত,মারুফা,তনু,নয় বছরের চাঁদনী কত নাম বলবো!
ওদের ও প্রাণ কেড়ে নিয়েছে এই হায়নার দল।
মাগো তুমি চোখের পানি ফেল না,
আমি বেঁচে থাকলে তুমি হতে সব চেয়ে বড় অপরাধি
সমাজ, সমাজের মানুষগুলো বলতো মেয়েকে শাসন করে নাই।
মেয়েটার দোষ ছিল,শুধু কি ছেলেরাই দোষী?
তোমাকে আর এসব কথা শুনতে হবে না!
জান মা, এই পৃথিবী থেকে কেউ মরতে চায়,
যখন আমাকে ওরা আজরাইল হয়ে মেরে ফেলে তখন আমিও বাঁচতে চেয়েছিলাম।
কিন্ত ওরা আমাকে মেরেই ফেললো….
আর কখনো তোমার কোলে মাথা রেখে
আদর চাইবো না।
প্রজাপতি হয়ে উড়তে চাইবো না আর খোলা বাতাসে……
হয়তো পরপারে আবার দেখা হবে তোমার সাথে মা।
মাগো ধৈর্য্য ধর শেষ বিচারের মালিক যিনি তার বিচারের অপেক্ষা…..
আমার সম্ভ্রমহানি আর ঝুলন্ত লাশের ছবি বিধাতার কাছে পৌঁছে গেছে…
শুধু অপেক্ষা আর অপেক্ষা,,,,,,,,

 

ঘুরে আসুন আমাদের ফেসবুক পেইজে

Facebook Comments Box

প্রকৌশলী মো. আলতাব হোসেন, সাহিত্য সংস্কৃতি এবং সমাজ উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে নিবেদিত অলাভজনক ও অরাজনৈতিক সংগঠন "আমাদের সুজানগর"-এর প্রতিষ্ঠাতা এবং "আমাদের সুজানগর" ওয়েব ম্যাগাজিনের সম্পাদক ও প্রকাশক। সুজানগর উপজেলার ইতিহাস, ঐতিহ্য, সাহিত্য, শিক্ষা, মুক্তিযুদ্ধ, কৃতি ব্যক্তিবর্গ ইত্যাদি বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করতে ভালোবাসেন। বিএসসি ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পন্ন করে বর্তমানে একটি স্বনামধন্য ওয়াশিং প্লান্টের রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট সেকশনে কর্মরত আছেন। তিনি ১৯৯২ সালের ১৫ জুন পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার অন্তর্গত হাটখালী ইউনিয়নের সাগতা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

error: Content is protected !!